Wednesday, February 28, 2024

আমাদের মুসলিমউম্মাহ ডট নিউজে পরিবেশিত সংবাদ মূলত বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সমাহার। পরিবেশিত সংবাদের সত্যায়ন এই স্বল্প সময়ে পরিসরে সম্ভব নয় বিধায় আমরা সৌজন্যতার সাথে আহরিত সংবাদ সহ পত্রিকার নাম লিপিবদ্ধ করেছি। পরবর্তীতে যদি উক্ত সংবাদ সংশ্লিষ্ট কোন সংশোধন আমরা পাই তবে সত্যতার নিরিখে সংশোধনটা প্রকাশ করবো। সম্পাদক

হোমদৈনন্দিন খবরদুর্নীতির অভিযোগে মালদ্বীপের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্টের ২০ বছর জেল

দুর্নীতির অভিযোগে মালদ্বীপের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্টের ২০ বছর জেল

সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমেদ আদিবের বিরুদ্ধে অন্যান্য অপরাধের মধ্যে অর্থ আত্মসাত, অর্থ পাচার এবং সরকারী কর্তৃত্বের অপব্যবহারের অভিযোগ আনে দেশটির ফৌজদারি আদালত।

মালদ্বীপের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট আহমেদ আদিবকে দুর্নীতির অভিযোগে ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে দেশটির ফৌজদারি আদালত। তার বিরুদ্ধে পর্যটন খাতের উন্নয়নের নামে অর্থ সরিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল।

কারাদণ্ডের পাশাপাশি ১,২৯,৮৯২ ডলার অর্থ জরিমানাও করা হয়েছে আদিবকে। ৩৮ বছর বয়সী আদিব, গত মাসে একটি আবেদন চুক্তির আওতায় দোষী সাব্যস্ত হয়েছিলেন।

বিচারক হাসান সাঈদের আদেশ অনুসারে, আদিবের বিরুদ্ধে অন্যান্য অপরাধের মধ্যে অর্থ আত্মসাত, অর্থ পাচার এবং সরকারী কর্তৃত্বের অপব্যবহারের অভিযোগ আনে দেশটির ফৌজদারি আদালত।

বর্তমান সরকার গঠিত একটি সম্পদ পুনরুদ্ধার কমিটি অনুযায়ী, আদিব রিসোর্ট উন্নয়নের নামে ছোট ছোট দ্বীপগুলো ইজারা দিয়েছিল। যার ফলে রাষ্ট্রের ২৬ কোটি মার্কিন ডলার ক্ষতি হয়েছে।

আদালতে দেওয়া বিবৃতিতে আদিব বলেছিলেন, হারিয়ে যাওয়া অর্থ উদ্ধারে তিনি সহযোগিতা করতে প্রস্তুত।

গত বছরের আগস্টে আদিব অবৈধভাবে দেশ ছেড়েছিলেন। প্রতিবেশী দেশ ভারতে তিনি গ্রেপ্তার হন।

আদিব ২০১৫ সালের জুলাইয়ে, ৩৩ বছর বয়সে ভারত মহাসাগরের দ্বীপপুঞ্জটির সর্বকনিষ্ঠ সহ-সভাপতি হয়েছিলেন। তবে, মাত্র কয়েক মাস পরে ইয়টে তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনকে বোমা হামলা চালিয়ে হত্যাচেষ্টার অভিযোগে আদিবের চারুত্বের দর্শনীয় পতন ঘটে।

ইয়ামিন ২০১৮ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে হেরে যান। ২০১৯ সালে অর্থ পাচারের দায়ে তাকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। তিনি বোমা হামলা থেকে রেহাই পেলেও তার স্ত্রী ও দুই সহযোগী আহত হন।

মালদ্বীপের কর্তৃপক্ষ আদিবকে দ্রুত গ্রেপ্তার এবং দুর্নীতি মামলা মোকাবিলা করার জন্য ভারত থেকে মালদ্বীপে ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করে। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রথম অভিযোগটি হল পর্যটনের জন্য দ্বীপপুঞ্জের ইজারা থেকে প্রাপ্ত রাষ্ট্রীয় কোষাগারের প্রায় ৮০ মিলিয়ন ডলার চুরি এবং পরবর্তীটি হল ইয়ামিনকে হত্যার ষড়যন্ত্র।

চলতি বছর আদিবকে মোট ৩৩ বছরের জেল দেওয়া হয়েছিল। এটিকে মানবাধিকার গ্রুপ গুলি অন্যায় বলে আখ্যা দেয়।

গত বছরের মে মাসে, আপিল আদালত দণ্ডাদেশে রাজনৈতিক হস্তক্ষেপের উদ্ধৃতি দিয়ে আদিবের বিরুদ্ধে সাজা বাতিল করে এবং পুনর্বিচারের আদেশ দেয়। প্রসিকিউটররা এই রায়কে অর্থ পাচারের মামলায় আপিল করেছিলেন এবং সুপ্রিম কোর্ট একটি নতুন সিদ্ধান্ত মুলতুবি করে আদিবের পাসপোর্ট জব্দ করেছিল।

২০১৯ এর জুলাইয়ে তাকে গৃহবন্দি থেকে মুক্তি দেওয়া হয়েছিল।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

two × 5 =

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য