Wednesday, April 17, 2024
No menu items!

আমাদের মুসলিমউম্মাহ ডট নিউজে পরিবেশিত সংবাদ মূলত বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সমাহার। পরিবেশিত সংবাদের সত্যায়ন এই স্বল্প সময়ে পরিসরে সম্ভব নয় বিধায় আমরা সৌজন্যতার সাথে আহরিত সংবাদ সহ পত্রিকার নাম লিপিবদ্ধ করেছি। পরবর্তীতে যদি উক্ত সংবাদ সংশ্লিষ্ট কোন সংশোধন আমরা পাই তবে সত্যতার নিরিখে সংশোধনটা প্রকাশ করবো। সম্পাদক

হোমদৈনন্দিন খবরছোট ভাইকে অপহরণ করে কিডনি বিক্রির চেষ্টায় বড়ভাই আটক

ছোট ভাইকে অপহরণ করে কিডনি বিক্রির চেষ্টায় বড়ভাই আটক

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে আপন ছোটভাইকে অপহরণ করে কিডনি বিক্রয়ের চেষ্টার অভিযোগে আপন বড়ভাইকে আটক করেছে পুলিশ। অপহরণকারী ফাহাদ বিন ইহসান তারেক (২৫) ও অপহৃত রায়হান এহসান রিহানের (৫) আপন বড়ভাই। এ ঘটনায় ছেলের বিরুদ্ধে হাজীগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেছে তাদের বাবা মো. আবু তাহের।

জানা যায়, ছোটভাই রিহানকে অপহরণের পর বাসায় একটি চিঠি লিখে যায় তারেক। চিঠিতে বাবা মায়ের প্রতি রাগ করে চিঠিতে উল্লেখ করে তারেক লিখেন, আমি শুধু এই দিনটির অপেক্ষায় ছিলাম। এতদিন কোনো বাচ্চা পাই নাই। তাই আপনাদের সবকিছু মুখ বুজে সহ্য করেছি। আপনারা আপনাদের টাকা-পয়সার নিয়েই থাকেন। আর মানুষের ছেলেদের এই বড় বানান। আমার কিডনি বিক্রির সময় যেমন কিছু করতে পারেন নাই। এবারও পারবেন না, আপনাদের ছোট ছেলের সময়।

চিঠির সূত্র ধরেই হাজীগঞ্জ থানায় সাধারণ ডায়েরি করে তারেকের বাবা। এর পর টাকার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়ে তারেককে হাজীগঞ্জে আসতে বলে তার বাব। হাজিগঞ্জে আসলে পুলিশ তারেককে আটক করে।

পুলিশের হাতে আটক তারেক জানান, আমি মায়ের কারণে আমি আমার কিডনি বিক্রয় করে ব্যবসা শুরু করেছি। তবুও আমার গর্ভধারিনী মা আমাকে ব্যবসার জন্য টাকা না দিয়ে আরেকজনকে ২০ লাখ টাকা ধার দেয় ব্যবসা করার জন্য। আমি আমার ছোট ভাইকে অপহরণ করেছি শুধু মাত্র টাকার জন্য। কিডনি বিক্রয়ের কথাটি চিঠিতে লিখে আমার মা-বাবাকে ভয় দেখিয়ে ছিলাম।

এ বিষয়ে আটক তারেকের মা ফরিদা সুলতানা জানান, আমার বড় ছেলে তার ছোট ভাইয়ের সাথে এমন করবে এটা আমি কল্পনাও করতে পারিনি।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোশারফ জানান, অপহরণকারীকে আটক করা হয়েছে এবং অপহৃত রিহানও আমাদের জিম্মায় রয়েছে। আগামীকাল অপহরণকারীকে আদালতে প্রেরণ করা হবে।

ইত্তেফাক/এনএ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

eleven + 1 =

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য