Wednesday, February 28, 2024

আমাদের মুসলিমউম্মাহ ডট নিউজে পরিবেশিত সংবাদ মূলত বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের সমাহার। পরিবেশিত সংবাদের সত্যায়ন এই স্বল্প সময়ে পরিসরে সম্ভব নয় বিধায় আমরা সৌজন্যতার সাথে আহরিত সংবাদ সহ পত্রিকার নাম লিপিবদ্ধ করেছি। পরবর্তীতে যদি উক্ত সংবাদ সংশ্লিষ্ট কোন সংশোধন আমরা পাই তবে সত্যতার নিরিখে সংশোধনটা প্রকাশ করবো। সম্পাদক

হোমদৈনন্দিন খবরশারীরিক-মানসিক নির্যাতনের কারণে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল দুই বোন

শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের কারণে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল দুই বোন

  • হোম
  • দেশগ্রাম
  • শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের কারণে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল দুই বোন

প্রকাশ : ১৩ মার্চ, ২০২১ ২১:৫৮
অনলাইন ভার্সন https://www.facebook.com/v2.8/plugins/share_button.php?app_id=&channel=https%3A%2F%2Fstaticxx.facebook.com%2Fx%2Fconnect%2Fxd_arbiter%2F%3Fversion%3D46%23cb%3Df1ffd0417a3b982%26domain%3Dwww.bd-pratidin.com%26origin%3Dhttps%253A%252F%252Fwww.bd-pratidin.com%252Ff3c84a3d275ba6%26relation%3Dparent.parent&container_width=67&href=https%3A%2F%2Fwww.bd-pratidin.com%2Fcountry%2F2021%2F03%2F13%2F628100&layout=button_count&locale=en_US&mobile_iframe=true&sdk=joey প্রিন্ট করুন

শারীরিক-মানসিক নির্যাতনের কারণে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল দুই বোন

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

মা ও ভাবীর মানসিক ও শারীরিক নির্যাতনের কারণে বাড়ি থেকে পালিয়েছিল দুই বোন। তাদের একজনের নাম ময়না, অন্যজন বন্যা। তাদের উদ্ধারের পর তারা শনিবার বিকালে পিবিআইয়ের কাছে এমন তথ্য দিয়েছে।

এর আগে গত ৯ মার্চ বিকালে সিরাজগঞ্জ জেলার এনায়েতপুর থানার আজুগড়া গ্রামের রফিকুল ইসলামের মেয়ে ময়না (১২) ও তার ফুফাতো বোন একই গ্রামের আজাহার বেপারীর মেয়ে বন্যা খাতুন (১৩) হারিয়ে যায়। এ ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। ওই ডায়েরির ভিত্তিতে পিবিআই সিরাজগঞ্জ ইউনিট অনুসন্ধানে নামে। একপর্যায়ে ১১ মার্চ রাতে টাঙ্গাইলের ঘাঁটাইল থেকে ময়মনসিংহগামী একটি বাস থেকে দুইবোনকে উদ্ধার করা হয়। দুই বোনের বক্তব্যের বরাতে সিরাজগঞ্জ পিবিআইয়ের পুলিশ সুপার মো. রেজাউল করিম জানান, ময়না ক্লাস ফোরে পড়ত। পড়াশোনা ভালো না হওয়ায় তার মা সবসময় তাকে বকাঝকা করতেন। এমনকি তাকে আত্মহত্যা করে মরে যাবার পরামর্শ দিতেন। একইভাবে বন্যার ভাবী বন্যাকেও মানসিকভাবে নির্যাতন করতেন। সারাক্ষণ তার ভাবীর সন্তানকে কোলে রাখতে দিতেন। কিছু বললে বাড়ি থেকে চলে যেতো বলতেন। এ অবস্থায় দুইজনের বাড়ি পাশাপাশি হওয়ায়  দুজন বান্ধবীর হবার সুযোগে দুজন দুজনের দুঃখ শেয়ার করত। প্রথমে দুজনে এক সাথে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু পরে আত্মহত্যার সিদ্ধান্ত বাদ দিয়ে দুজনে বাড়ি থেকে পালিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নেয়। সিদ্ধান অনুযায়ী ৯ মার্চ বাড়ি থেকে কিছু টাকা নিয়ে বের হয় দুই বোন। 

এনায়েতপুর থেকে কড্ডার মোড়ে এসে ময়মনসিংহের গাড়িতে উঠে রাতে ময়মনসিংহ বাইপাসে নামে। দু-একজন সন্দেহ করে কোথায় যাবে জিজ্ঞেস করলে, কোনো সদুত্তর দিতে পারেনি তারা। তখন আমিরুল মিস্ত্রি নামে একজন লোক দুজনকে তার বাসায় আশ্রয় দেন। আমিরুলের স্ত্রী-সন্তানরা তাদের থাকা খাওয়ার ব্যবস্থা করেন। আমিরুল ওদের বাড়ির ঠিকানা জানতে চাইলে তারা শুধু সিরাজগঞ্জ ছাড়া আর কিছুই বলতে পারেনি। দুদিন পর আমিরুল ময়না ও বন্যাকে বুঝিয়ে-সুজিয়ে সিরাজগঞ্জের একটি গাড়িতে তুলে দেয়। সাথে গাড়ির টিকিট এবং শুকনা খাবার দিয়ে দেয়। ১১ মার্চ তারা সিরাজগঞ্জের কড্ডার মোড়ে নেমে আবার সিন্ধান্ত নেয়, বাড়ি ফিরে যাবে না। বাড়িতে তাদের প্রতি অবহেলা, তিরস্কার, বকাঝকা, শারীরিক কষ্ট তাদের বাড়ি যেতে মন সায় দেয়নি। তারপর তারা আবার ময়মনসিংহগামী একটি গাড়িতে উঠে বসে, উদ্দেশ্য ময়মনসিংহ আমিরুলের বাসা। তার হাতে পায়ে ধরে কারো বাসায় কাজ করা বা গার্মেন্টসের চাকরি পাওয়া। এ অবস্থায় পিবিআইয়ের পরিদর্শক গোলাম কিবরিয়ার নেতৃত্বে পিবিআই টিম ১১ মার্চ সন্ধ্যা ৭টার দিকে তাদের ময়মনসিংহগামী বাস থেকে টাঙ্গাইলের ঘাঁটাইল থেকে উদ্ধার করে। 

তিনি জানান, উদ্ধার দুই বোনকে এনায়েতপুর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। 

বিডি প্রতিদিন/জুনাইদ আহমেদ

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে

four × 3 =

সবচেয়ে জনপ্রিয়

সাম্প্রতিক মন্তব্য